শরীয়তি দৃষ্টিতে খাওয়ার আদব

রাসুল (সাঃ) প্রত্যেক বিষয়ে সাহাবিদের শিক্ষা দিয়েছেন। তার প্রতিটি কর্ম ও পদক্ষেপ মানবতার অনুসরণযোগ্য। তার কর্মপদ্ধতি অনুসরণ করলে মুমিনের জীবনে বয়ে যাবে প্রশান্তির ফল্গুধারা। ইসলামি শরীয়তে খাওয়ার আদব সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত আলোচনা।

হাত ধোয়াঃ
(খাওয়ার পূর্বে) উভয় হাত কব্জি পর্যন্ত ধোয়া। (ইবনে মাজাহঃ ১/২৩)
ডান হাতে খানা খাওয়া সম্পর্কেঃ মহানবী(সাঃ) ইরশাদ করেছেন, “যখন তোমাদের কেউ আহার করে তখন সে যেন তার ডান হাত দিয়ে খায় এবং যখন পানি পান করে, তখন যেন ডান হাতে পান করে, কারন শয়তান বাম হাত অবলম্বন করে খায় এবং পানি পান করে।” (আবু দাউদ শরীফ)

খাবার শুরুতে বিসমিল্লাহ্‌ বলাঃ
হযরত আমর বিন সালামা(রাঃ) বর্ণনা করেন, হুজুর(সাঃ) আমাকে হুকুম করেছেন, “খানা খাওয়ার শুরুতে আল্লাহ্‌র নাম স্মরন করো। অর্থাৎ ‘বিসমিল্লাহ্‌’ বলে আরম্ভ করো। এবং বরতনের ঐ অংশ থেকে খাও, যা তোমার নিকটবর্তী। হাত বাড়িয়ে অপরের দিক থেকে খেও না।”

এই হাদিসটিতে খাদ্য গ্রহনের তিনটি আদব সুস্পষ্ট। প্রথম আদব ‘বিসমিল্লাহির রাহ্‌মানির রাহিম’ বলে খাওয়া আরম্ভ করা। অপর হাদিসে হযরত আয়শা(রাঃ) বলেন, “হুজুর(সাঃ) এরশাদ করেছেন, তোমাদের কেও যখন খানা খেতে শুরু করে, তখন যেন সে আল্লাহ্‌র নাম নেয়। আর কেও যদি ‘বিসমিল্লাহ্‌’ বলা ভুলে যায় এবং পরে খানা খাওয়ার মাঝে স্মরন হয়, তখন যেন সে ‘বিসমিল্লাহ্‌ আওয়ালাহুওয়া আখিরাহু’ বলে।” (আবু দাউদ)
অর্থাৎ – শুরুতে বা শেষে সর্বসময় আমরা আল্লাহ্‌রই নাম জপি, অন্য কারো নয়।

বিনা প্রয়োজনে চেয়ার – টেবিলে খাবে নাঃ
একবার হযরত থানবি(রহঃ) -এর চেয়ার – টেবিলে খাওয়ার প্রয়োজন হয়েছিল, তখন তিনি বললেন, এমনিতে চেয়ার – টেবিলে বসে খাওয়া নাজায়েজ নয়। তবে এতে কিছুটা বিজাতীয় সাদৃশ্য গ্রহনের ‘আভাষ’ রয়েছে। কেননা, পদ্ধতিটি ইংরেজদের দ্বারা প্রচলিত হয়েছে। না জানি খাওয়ার মধ্যে ওদের সাদৃশ্য দোষ হয়ে যায়।

তাই তিনি চেয়ার বসার সময় পা তুলে বসলেন, পা ঝুলিয়ে দেন না। এরপর বললেন, ইংরেজদের তরিকার সাথে একাকার হয়ে খাওয়ার যে ভয় ছিল, এরূপ বসার দ্বারা খতম হয়ে গেল, কেননা , ওরা পা ঝুলিয়ে বসে আর আমি পা উচিয়ে বসে খাচ্ছি।

যাইহোক, চেয়ার – টেবিল এ খাওয়া নাজায়েজ নয় নয়, গোনাহ নয়। তবে এতটুকু যে, মানুষ যতবেশি সুন্নতের নিকটবর্তী হবে ততবেশি বরকত ও সওয়াব লাভ করবে। সুতরাং বিনা প্রয়োজনে চেয়ার – টেবিলে বসে খাওয়ার এহতেমাম করা। কিন্তু যেখানে প্রয়োজনে দেখা দেয়, সেখানে চেয়ার – টেবিলে বসে খাওয়া যেতে পারে। অবশ্য এতটুকু খেয়াল রাখতে হবে, যেন পেছনে পিঠ চেয়ারের সাথে না লাগে। বরং সম্মুখের দিকে ঝুঁকে খানা খাবে। পেছনে ঠেস দিয়ে খাওয়াকে নবীজি(সাঃ) অহংকারপূর্ণ খাওয়া সাব্যস্ত করেছেন। এটি অহংকারীদের আমল, এটি দুরুস্ত নেই।

চৌকিতে বসে আহার করাঃ
চৌকিতে বসে আহার করাও বৈধ। বরং চেয়ার – টেবিল বসে খাওয়ার তুলনায় চৌকিতে বসে খাওয়া উত্তম। কেননা, ঐ তরিকা, যেখানে আহারকারী ও আহার্য বস্তু একই সমতলে থাকে, তা উত্তম ঐ তরিকার চেয়ে, যেখানে আহারকারী নীচে আর আহার্য বস্তু উপরে থাকে। সর্বোপরী তা সুন্নতের সর্বাধিক নিকটবর্তী। আমাদের সুন্নতের ওপর আমল করায় ও তার কাছাকাছি অবস্থান করায় তাওফিক দান করুন। আমীন।

খাওয়ার সময় কথা বলাঃ
একটা ভুল কথা চালু হয়ে গেছে যে, আহার করার সময় কথা বলা জায়েয নেই। এটিও ভিত্তিহীন। শরীয়তে এর কোনো প্রমান নেই। আহার করার সময় প্রয়োজনীয় কথা বলা যায়। নবীজি(সাঃ) বলতেন, আহারের মাঝে কোনো গভীর ও গুরুত্বপূর্ণ কথাবার্তা না হওয়া চাই। সধারন কথা হলে ক্ষতি নেই। কেননা, খাবারেরও হক আছে।

আর তাহলে, মনোযোগ সহকারে খাওয়া। গভীর ও গুরুত্বপূর্ণ কথা শুরু হলে খাবারের পরিবর্তে কথার দিকে মনোযোগ আকৃষ্ট হয়ে যেতে পারে। আর তাতে খাবারের হক নস্ট হবে। সুতরাং তা দুরস্ত নেই। কিছুটা আনন্দদায়ক ও সামান্য বিনোদনমূলক দু’চার কথা বলা যেতে পারে।

খাবারে ফুঁ না দেওয়াঃ
রাসুল (সাঃ) খাবারে ফুঁ দেওয়া থেকে বিরত থাকতে বলেছেন। কারন, খাবার ও পানীয়তে ফুঁ দেওয়ার ফলে অনেক ধরনের রোগ হতে পারে। ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) কখনো খাবারে ফুঁ দিতেন না।

খাবারের শেষে দোয়া পড়াঃ
খাওয়ার পর দোয়া পড়া দ্বারা ছগীরা গোনাহ মোচন হয়ঃ নবীজি(সাঃ) বলেন, “যে ব্যক্তি আহার করে সে যেন বলে, ‘আল হামদু লিল্লাহিল্লাযী আত’আমানী হাযা ওয়া রাযাকানীহি মিন গাইরি খাওলিন মিন্নী ওয়ালা কুওয়্যাতিন’ তাহলে তার পূর্বেকার গুনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হবে” (তিরমিযী, ইবনে মাজাহঃ ১/২৩৬)।

রাসুল (সা:)-এর সুন্নতগুলো জীবনে বাস্তবায়ন সম্ভব হলে, জীবন সুন্দর ও সার্থক হবে। আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করুন।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Popular Now

Categories

ABOUT US

Dainikchorcha.com is a blog where we post blogs related to Web design and graphics. We offer a wide variety of high quality, unique and updated Responsive WordPress Themes and plugin to suit your needs.

Contact us: [email protected]

FOLLOW US