মহিলাদের সৌন্দর্য বাড়ানোর কয়েকটি ঘরোয়া উপায়

ফর্সা ও উজ্বল ত্বক সব মানুষের স্বপ্ন। ত্বকের সৌন্দর্য মানুষের মনে খুব সহজেই জায়গা করে নেই। কথায় আছে, সুন্দর মুখের জয় সর্বত্র। বেশিরভাগ নারী তাদের সামগ্রিক উপস্থিতিতে অসন্তুষ্ট। অনেকের মতে আকর্ষণীয় হওয়ার চাবিকাঠি হল নিখুঁত মেকআপ এবং সাজসজ্জা। মেকআপের জন্য বাজার থেকে সৌন্দর্য সামগ্রী কিনে ফেলি। হয়ত এগুলি ক্ষনিকের জন্য উপকার করলেও, তাতে ব্যবহৃত ক্ষতিকারক কেমিকেল ত্বকের ক্ষতি করে। যার ফলে পঁচিশ পেরোনোর পরেই ত্বকের স্বাভাবিক উজ্জ্বলতা নষ্ট হয়ে যায়।

কিন্তু প্রাকৃতিক উপায়ে আমরা ত্বককে সুন্দর করে তুলতে পারি। এছাড়াও প্রাকৃতিক উপায় ব্যবহার করলে আমাদের ত্বকের কোনো ক্ষতি করে না। তাই জেনে নেব প্রাকৃতিক উপায়ে কীভাবে ত্বকের সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলবেন।

লেবু:- ব্রণের দাগ, ত্বকের কালচে ভাব, কনুই ও হাঁটুর কালচে ভাব দূর করতে লেবুর রসের সাথে বেকিং পাউডার মিশিয়ে ওই জায়গায় লাগালে ত্বকের কালচে ভাব থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। ওজন বৃদ্ধির ফলে বা গর্ভবতী মহিলাদের স্ট্রেচ মার্কসের ওপর লেবুর রস নিয়মিত প্রয়োগ করলে দাগ হালকা হতে শুরু করে।

গ্রীন টি:- গ্রিন টি ডিটক্সিফিকেশনের জন্য অবশ্যই দুর্দান্ত। পাশাপাশি এটি স্কিনস্কেয়ারের জন্যও খুব ভালো। এটির অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এবং অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল বৈশিষ্ট্যগুলির সাহায্যে এটি লালভাব এবং ফোলাভাব দূর করতে এবং ডার্ক সার্কেল অপ্সারনে সহায়তা করে।

ঘি:- ঘি এর মধ্যে আছে ফ্যাটি অ্যাসিড যা ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা বজায় রাখে। ত্বকের পক্ষে ভালো ময়েশ্চারাইজার হল ঘি। শুষ্ক ও খসখসে জনিত ত্বকে ভালোভাবে ঘিয়ের ম্যাসাজ করলে ত্বক হয়ে ওঠে মোলায়েম ও সুন্দর। বার্ধক্য জনিত দাগ, মেচেদার ছোপ, কালচে ভাব ইত্যাদি দূর করতেও ঘিয়ের ম্যাসাজ খুবই প্রয়োজন।

আমন্ড তেল:- চোখের নীচের কালো দাগ দূর করতে আমন্ড তেলের জুড়ি মেলা ভার। ব্রন কমাতেও এটি সাহায্য করে। রেটিনল, ভিটামিন-ই, ভিটামিন-কে’র ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে আমন্ড তেল। চামড়া মসৃন রাখতে এটি যথেষ্ট উপকারী।

ভেসলিন:- চামড়ার বাইরে ও ভেতরে দারুন কাজ করে ভেসলিন। মেকআপ তুলতে এটি খুব কাজে লাগে। চামড়াকে সুরক্ষা দেওয়ার ক্ষেত্রে এটি যথেষ্ট উপকারী। শরীরের কোথাও কেটে গেলে সেই দাগ দূর করতেও ভেসলিন খুব কাজে লাগে।

বেসন:- বেসন রূপচর্চাই দারুণভাবে কাজ করে। সানস্ক্রিন ব্যবহার না ব্যবহার না করলে সূর্যের তাপে চামড়া পুড়ে যায়। এই পোড়া ভাব দূর করতে বেসন এর সাথে লেবুর রস, এক-চামচ দুধ ও সামান্য হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে দাগের উপর লাগালে আস্তে আস্তে আগের অবস্থায় ফিরে আসে। বেসনের মধ্যে স্কিন লাইটেনিন্ প্রপার্টিজ থাকে যা ত্বকের রঙ হালকা করতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন মুখ ও হাত-পায়ে বেসন ব্যবহার করলে গায়ের রঙ উজ্বল হতে থাকে।

ঠাণ্ডা জল:- মেকআপ করার আগে ঠাণ্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিলে মেকআপ অনেকক্ষণ স্থায়ী হয়। ঠাণ্ডা জল আপনার ত্বকের লোমকূপগুলিকে শক্ত করে যার ফলে আপনার মেকআপ অনেকক্ষণ থাকে। এছাড়াও প্রতিদিন দু’বার ঠাণ্ডা জল দিয়ে মুখ ধুতে পারেন।

দুধ:- দুধের মধ্যে থাকা ল্যাকটিক আসিড ত্বক কে পরিষ্কার করতে, দাগ-ছোপ দূর করতে, উজ্বল ত্বক পেতে সাহায্য করে। মুখ পরিষ্কার করে তুলো দিয়ে দুধ মুখে লাগালে মুখের কালো ভাব, নোংরা –ময়লা ইত্যাদি উঠে উজ্বল, মোলায়েম ত্বক পেতে সাহায্য করে।

মধু:- মধু আপনার শরীরের নিরাময়ে প্রক্রিয়াতে সাহায্য করে, যার ফলে আপনার মুখে ব্রন এবং ব্রনর দাগ অনেকটাই কমে যায়। ব্রনর দাগ দূর করতে আপনি অবশ্যই মধু ব্যবহার করতে পারে। প্রতিদিন অথবা একদিন অন্তর ব্রনর দাগের উপর মধু লাগালে সেটি থেকে উপশম হয়।

নারকেল তেল:- চুল ধোয়ার আগে নারকেল তেল দিয়ে মালিশ করুন। শ্যাম্পু করার আগে দশ মিনিট ধরে নারকেল তেলের মালিশ আপনার চুলে আমূল পরিবর্তন আনবে। নারকেল তেল আপনার চুলকে গোড়া থেকে মজবুত এবং চকচকে বানায়।

ডার্ক সার্কেল কমাতে চামচ:- যদি আপনার কাছে টি ব্যাগ বা ক্যাফিনেটেড আই ক্রিম না থাকে,তাহলে ডার্ক সার্কেল দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন ঠাণ্ডা চামচ। এটি আপনার চোখের নীচের কালো দাগ দূর করতে দারুন ভাবে সাহায্য করবে। দুটি পরিষ্কার ধাতব চামচ জল ডুবিয়ে তারপর ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করুন অন্তত দশ মিনিট। তারপর সেটিকে কিছুক্ষন ডার্ক সার্কেলে চেপে রাখুন।

Related Articles

Popular Now

Categories

ABOUT US

Dainikchorcha.com is a blog where we post blogs related to Web design and graphics. We offer a wide variety of high quality, unique and updated Responsive WordPress Themes and plugin to suit your needs.

Contact us: [email protected]

FOLLOW US